16303

06/21/2024 ভারতে সমকামী বিয়ের বৈধতার আবেদন খারিজ

ভারতে সমকামী বিয়ের বৈধতার আবেদন খারিজ

রাজ টাইমস

১৭ অক্টোবর ২০২৩ ১৯:১২

সমকামিতা বা সমলিঙ্গের সম্পর্ক স্বীকৃতি দিলেও সমলিঙ্গে বিবাহকে আইনি স্বীকৃতি দিলেন না ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) দেশটির শীর্ষ আদালতের সাংবিধানিক বেঞ্চের তরফে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। তাতে ৩ জন বিচারপতি সমলিঙ্গে বিবাহকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ার বিপক্ষে রায় দেন। অপরদিকে ২ জন বিচারপতি সমলিঙ্গে বিবাহকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ার পক্ষে রায় দেন।

এই আবহে ৩-২ ভোটে সমকামীদের হার হয়। এর ফলে ভারতে সমলিঙ্গে বিবাহ আইনের চোখে বৈধতা পেল না।

এর আগে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় নিজের রায়ে জানান, রূপান্তরকামী কোনো পুরুষ যদি মহিলাকে বিয়ে করতে চান, বা রূপান্তরকামী কোনো মহিলা যদি পুরুষকে বিয়ে করতে চান, তাহলে তারা তা করতে পারবেন। এদিকে বিচারপতি ভাট নিজের রায়ে বলেন, 'আদালত সমকামী দম্পতিদের জন্য একটি সামাজিক বা আইনি প্রতিষ্ঠান তৈরি করতে পারে না।'

এর আগে মামলাকারীদের দাবি ছিল, স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্টের আওতায় সমলিঙ্গে বিয়েকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়া উচিত। তাদের হয়ে মামলা লড়েন মুকুল রোহতগি, অভিষেক মনু সিংঘভি, আনন্দ গ্রোভার, গীতা লুথরা, মেনকা গুরুস্বামীদের মতো আইনজীবীরা।

মামলাকারীরা দাবি করেন, সবারই সমানাধিকার পাওয়া উচিত। যদিও সমলিঙ্গের বিবাহকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ার বিরোধিতা করে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রের বক্তব্য ছিল, সমলিঙ্গে বিয়ের বিষয় নিয়ে একমাত্র সিদ্ধান্ত নিতে পারে সংসদ তথা দেশের আইনসভা।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের জমা করা হলফনামায় বলা হয়েছিল, 'সমলিঙ্গে বিবাহ আদতে শহুরে অভিজাত একটি ধারণা'। আদালতে কেন্দ্রের যুক্তি, সমলিঙ্গ বিবাহকে স্বীকৃতি দিলে দেশের প্রতিটি নাগরিকের স্বার্থ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। শুনানির সময় সওয়াল জবাব চলাকালীন সলিসিটর জেনারেল এ-ও মন্তব্য করেছিলেন, 'পাঁচজন মেধাবী এবং শিক্ষিত ব্যক্তি' পুরো দেশের হয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। তার এহেন মন্তব্যে বেজায় চটেছিলেন দেশটির শীর্ষ আদালেতর প্রধান বিচারপতি। সুপ্রিম কোর্টের ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারকে।

এদিকে মামলার শুনানি চলাকালীন নিজেদের পর্যবেক্ষণে সুপ্রিম কোর্ট বলেছিলেন, 'কে পুরুষ, কে মহিলা, তা শুধুমাত্র যৌনাঙ্গ দিয়ে বিচার করা যায় না।'

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৬ সেপ্টেম্বর এক ঐতিহাসিক রায়দানের মাধ্যমে সমকামী সম্পর্ককে অপরাধমুক্ত বলে ঘোষণা করেছিলেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। ব্রিটিশ জমানার বহু পুরোনো আইনকে প্রত্যাহার করে পাঁচ সদস্যের বিচারপতিদের বেঞ্চ জানিয়েছিলেন, ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারার আওতায় দুজনের পূর্ণ সম্মতিতে সমকাম সম্পর্ক অপরাধ নয়। সেই পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চে ছিলেন ভারতের বর্তমান প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ও।

তবে সমকামী সম্পর্ক বৈধ হলেও ভারতে সমকামী বিয়ের আইনি বৈধতা ছিল না এতদিন ধরে। এই আবহে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন একটি বেঞ্চ নির্দেশনা জারি করে, বিভিন্ন হাই কোর্টে সমকামী বিবাহ-সংক্রান্ত যাবতীয় পিটিশন মুলতুবি করে তা শীর্ষ আদালতে পাঠানো হোক। সেইমতো শীর্ষ আদালতে মে মাসে ১০ দিন শুনানি চলে। পরে মামলার রায়দান স্থগিত রাখা হয়।

প্রকাশক ও সম্পাদক : মহিব্বুল আরেফিন
যোগাযোগ: ২৬৮, পূবালী মার্কেট, শিরোইল, ঘোড়ামারা, রাজশাহী-৬০০০
মোবাইল: ০৯৬৩৮ ১৭ ৩৩ ৮১; ০১৭২৮ ২২ ৩৩ ২৮
ইমেইল: [email protected]; [email protected]