শিক্ষকদের লক্ষ্য করে সাম্প্রদায়িক উসকানি তৈরির চেষ্টা চলছে: ওয়ার্কার্স পার্টি

রাজ টাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ২৭ জুন ২০২২ ১৯:১৮; আপডেট: ২৭ জুন ২০২২ ২০:২৬

ছবি: প্রতীকী

দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের শিক্ষকদের লক্ষ্য করে সাম্প্রদায়িক উসকানি সৃষ্টির অপচেষ্টা চলছে বলে মনে করে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি। তারা এসব ঘটনায় উদ্বিগ্ন। ক্ষোভ প্রকাশ করে দলটি বলছে, এ ব্যাপারে প্রশাসন নির্লিপ্ত। ক্ষেত্রবিশেষে প্রশাসন পক্ষপাতমূলক আচরণ করেছে।

আজ সোমবার এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেছেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা।

সম্প্রতি নড়াইলে একজন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধ্যক্ষকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে পুলিশের উপস্থিতিতে গলায় জুতার মালা পরিয়ে গ্রেপ্তার এবং অপর এক সংখ্যালঘু শিক্ষক সেই অধ্যক্ষকে রক্ষা করার চেষ্টা করলে তাঁকেও মারধর করা হয়। এসব বিষয় উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সারা দেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি যে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছে, এটা তারই অংশ।

ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন প্রগতিমনা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রদের লেলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। এ বিষয়ে ওয়ার্কার্স পার্টি বলছে, এই মহল এখন শিক্ষকদের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাম্প্রদায়িক উসকানি সৃষ্টির কৌশল হিসেবে নিয়েছে। সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক যে প্রশাসন তো বটেই, দেশের শিক্ষক সমাজ ও যাঁরা সব সময় এ ধরনের ঘটনার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন, তাঁরাও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছেন বলেও উল্লেখ করা হয়েছে বিবৃতিতে।

বিবৃতিতে দুই নেতা বলেন, এই ঘটনাগুলোই প্রমাণ করে দেশে সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতি কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে। বিশেষ করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ওয়াজের বয়ানে ও বিভিন্ন মন্তব্যে ভিন্ন ধর্মমত কেবল নয়, স্বধর্মমত বিভিন্ন অংশের বিরুদ্ধে চরম বিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে।

বিবৃতিতে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে ওয়ার্কার্স পার্টি। দলটি বলছে, সব সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক শক্তিকে নিজ অবস্থান থেকে ও ঐক্যবদ্ধভাবে সংখ্যালঘুদের টার্গেট করে সাম্প্রদায়িক উসকানি সৃষ্টির অপচেষ্টা এবং সর্বোপরি সাম্প্রদায়িক মানসিকতা তৈরির বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে।

 



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top