ডিসি অফিসে স্বেচ্ছাশ্রমে যাদের কাজ

সোহরাব হোসেন সৌরভ | প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০২০ ০৪:৫০; আপডেট: ২৯ মে ২০২৪ ০১:০৯

নো মাস্ক নো সার্ভিস, মাস্ক ইজ মাস্ট, মাস্ক পড়ুন সেবা নিন-এই স্লোগানে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকির দ্বিতীয় ধাপ প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার সংক্রান্ত প্রচারণা চালানো হচ্ছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। প্রচারণামূলক কার্যক্রম হিসেবে শহরে র‌্যালী ও অবস্থান কর্মসূচি, মাস্ক বিতরণ করে চলেছেন প্রশাসন, সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। কোন কোন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানাও করা হচ্ছে।

গতকাল দুপুরে রাজশাহী কোর্ট চত্বর গেটে মাস্ক না থাকায় এক ব্যক্তিকে ভিতরে প্রবেশে নিষেধ করেন উমেদার সারিফুল ইসলাম রাজ। তার কাছে মাস্ক না থাকায় রাজ তাকে একটি দিয়ে বলেন, এরপর থেকে কোর্টে কোন কাজে আসলে অবশ্যই মাস্ক পরে আসবেন।

জানা যায় উমেদার সারিফুল ইসলাম বেশ কয়েক বছর ধরে কোর্টে মেইন গেটে উমেদারের কাজ করছেন। কিন্তু কোন ধরণের মাসিক বেতন নেই। অর্থাৎ এটা কোন সরকারি চাকরি নয়।

সারিফুল ইসলাম রাজ জানান, স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতেই আমরা কয়েকজন কাজ করি। যদি কখনো লোকজন প্রয়োজন তখন হয়তো আমাদের অগ্রাধিকার থাকবে এই আশায় আমরা কাজ করে যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট অফিসের সহকারি অফিস সহকারি কাম মুদ্রাক্ষরিক (নাজির) আবু সালেহ মো. ইয়াসিন বলেন, ওরা কয়েকজন স্ব-ইচ্ছায় কাজ করে থাকে। তিনিও বলেন, সরকার ওইসব কাজের জন্য ৪র্থ শ্রেণির লোকজন নিলে এবং উর্ধ্বতন কর্তা ব্যক্তিরা তাদেরকে যোগ্যতা অনুসারে নিতেও পারেন। মূলত: এই আশায় তারা কাজ করছে।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top