রামেক হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ধর্মঘটে রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

রাজটাইমস ডেস্ক: | প্রকাশিত: ২৮ মার্চ ২০২৪ ২১:২১; আপডেট: ১৯ জুন ২০২৪ ২০:০৪

ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ধর্মঘটে চিকিৎসা না পেয়ে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (২৭ মার্চ) সকালে হাসপাতালের ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ওই রোগী মারা যান।

মারা যাওয়া ওই রোগীর নাম মাহমুদুল হাসান। তিনি পাবনা জেলার বাসিন্দা।

মাহমুদুল হাসানের মা নুরুন্নাহার অভিযোগ করে বলেন, মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) রাতে ছেলেকে নিয়ে হাসপাতালে আসি। তখন কোনো চিকিৎসক ছিলেন না। বুধবার সকালে চিকিৎসক আসার কিছুক্ষণ পরে আমার ছেলে মারা গেছে। রাতে ভালোভাবে চিকিৎসা দেওয়া হলে আমার ছেলে মারা যেত না।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ভাতা বৃদ্ধি ও কর্মস্থলে নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ চার দফা দাবিতে পোস্টগ্র্যাজুয়েট প্রাইভেট ট্রেইনি ডক্টর অ্যাসোসিয়েশন ও ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি চলছে গত চার দিন ধরে। এমবিবিএস শেষ করে হাসপাতালে ২১০ জন ইন্টার্ন চিকিৎসক ইন্টার্নশিপ করছেন।

এ ছাড়া ৬০ চিকিৎসক এফসিপিএস ও এমডিএমএস কোর্স করছেন। তারা সবাই গত রোববার থেকে কর্মবিরতিতে আছেন। ইন্টার্ন চিকিৎসকেরা না থাকলেও অন্য চিকিৎসকরা অতিরিক্ত দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে হাসপাতালের চিকিৎসা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রেখেছেন। কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

চিকিৎসা না পেয়ে রোগীর মৃত্যুর অভিযোগের বিষয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ এফ এম শামীম আহাম্মদ বলেন, ‘এসব অভিযোগ ঠিক নয়। আমাদের ডাক্তাররা রাতদিন পরিশ্রম করছেন। এত বড় হাসপাতাল, রোগী তো মারা যাবেই। আমাদের তো রোগীর কাছে যাওয়ার সময় দিতে হবে।’

তিনি বলেন, বর্তমানে রামেকে এক হাজার ২০০ শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি আছেন ২ হাজার ৪৯৮ জন। সোমবার (২৫ মার্চ) নতুন করে ৭৯০ রোগী ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে মারা যান ৩৪ জন। আমাদের হাসপাতালে রোগীর সুস্থতার হার ৯৮ শতাংশ। মারা যায় দুই শতাংশের কম। বহির্বিভাগে প্রায় সাত হাজার রোগী চিকিৎসা নেন। ৩০ থেকে ৪০ জনের মৃত্যু স্বাভাবিক।’

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের আন্দোলনের বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক বলেন, ‘এই ধর্মঘট কেন্দ্রীয়ভাবে হচ্ছে। ওদের ২৮ মার্চ পর্যন্ত ঘোষণা রয়েছে। তারপরও আমি তাদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) সকালে বসব। আলোচনা করে সমাধানের চেষ্টা করা হবে।’




বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top