সিরিজ জিততে টাইগারদের দরকার ২৪১ রান

রাজটাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৮ জুলাই ২০২১ ২০:৪৪; আপডেট: ৪ আগস্ট ২০২১ ০৫:৪৭

ফাইল ছবি

সিরিজে টিকে থাকতে এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই জিম্বাবুয়ের। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে সে লক্ষ্যে মোটামুটি ভালো ব্যাটিং করেছে দলটি। বিশেষ করে প্রথম ওয়ানডের তুলনায় বেশ ভালোই। রোববার হারারেতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ২৪০ রান। ওয়ানডে সিরিজ জিততে বাংলাদেশের দরকার ২৪১ রান।

টস জিতে ব্যাট করতে নামা জিম্বাবুয়েকে শুরুতেই চেপে ধরে বাংলাদেশ। প্রথম ওভারে উইকেট হারায় দলটি। ৫ বলে ১ রান করেন কামুনহুকামউই। অফ স্টাম্পের বাইরে শর্ট অব লেংথের বলে কাট করেছিলেন দলে ফেরা এই ওপেনার। ঠিকমতো খেলতে পারেননি। তাসকিনের বলে পয়েন্টে ক্যাচ মুঠোয় জমান আফিফ হোসেন।

দলীয় ২৩ রানে দ্বিতীয় উইকেটের পতন। এসেই মিরাজের আঘাত। ৭ ও ১১ রানে জীবন পাওয়া টাডিওয়ানাশে মারুমানিকে বোল্ড করে দেন তিনি। অফ স্পিনারের অ্যাঙ্গেলে ভেতরে ঢোকা বল ক্রস ব্যাটে খেলেন মারুমানি। পারেননি বলে-ব্যাটে করতে। এলোমেলো হয়ে যায় স্টাম্প। দুই চারে ১৮ বলে ১৩ রান করেন মারুমানি।
চাকাভা ও টেইলর দলকে টেনে নিতে থাকেন। শেষ অবধি এই জুটি ভাঙেন সাকিব আল হাসান। বোল্ড চাকাভা। মিডল স্টাম্পে থাকা ফুল লেংথের বলের লাইন মিস করেন চাকাভা। প্যাড ছুঁয়ে আঘাত হানে স্টাম্পে। ভাঙে ৪৭ রানের জুটি। ৩২ বলে দুই চারে ২৬ রান করেন চাকাভা।

দলীয় ১১১ রানে বিদায় নেন জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক টেইলর। আগে একবার পিছিয়ে গিয়ে খেলার চেষ্টায় পা থেকে জুতা খুলে গেলেও একটুর জন্য হিট উইকেট হননি ব্রেন্ডন টেইলর। তবে শেষ পর্যন্ত এই দুর্ভাগ্যজনক আউট হয়েই ফেরেন তিনি।
শরিফুল ইসলামকে অনেকবারই আপার কাট করার চেষ্টা করছিলেন টেইলর। ২৫তম ওভারে আবার সেই একই চেষ্টায় ব্যর্থ হন। কট বিহাইন্ডের আবেদন করে বাংলাদেশ। পরে আবার সেই শটের শ্যাডোর মতো করতে গিয়ে বেলস ফেলে দেন টেইলর।

রিপ্লেতে দেখে তাকে হিট উইকেট দেন আম্পায়ার। ৫৭ বলে পাঁচ চার ও এক ছক্কায় ৪৫ রান করেন টেইলর। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে এটি চতুর্থ হিট উইকেটের ঘটনা, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সপ্তম।

এরপর রক্তাক্ত মেহেদী হাসান মিরাজ। বল-ব্যাটের মাঝে পড়ে কেটে যায় এই অফ স্পিনারের আঙুল। মিরাজের বল বোলারের দিকেই ফেরত পাঠান ওয়েসলি মাধেভেরে। নন স্ট্রাইকার ব্যাটসম্যান ডিওন মায়ার্স অহেতুক এগিয়ে রেখেছিলেন ব্যাট। তৎপর মিরাজ ফিল্ডিং করতে গেলে তার ডান হাত পড়ে যায় বল-ব্যাটের মাঝে। এত বেশ ব্যথা পান মিরাজ, তার আঙুলও কেটে যায়। ফিজিও মাঠে আসার পর তার সঙ্গে মাঠ ছাড়েন মিরাজ।
সাকিবের দ্বিতীয় শিকার মায়ার্স। আবারও আশা জাগিয়ে থেমে গেল জিম্বাবুয়ের একটি জুটি। লং অন দিয়ে সাকিবকে ছক্কায় ওড়াতে চেয়েছিলেন মায়ার্স। পারেননি ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। কিছু বায়ে সরে গিয়ে ক্যাচ মুঠোয় নেন মাহমুদউল্লাহ। ভাঙে ৩৫ রানের জুটি। টানা চার উইকেটে ৩০ রানের জুটি পায় জিম্বাবুয়ে।

৩৩ ওভারে জিম্বাবুয়ের স্কোর ৫ উইকেটে ১৪৭। ক্রিজে ওয়েসলি মাধেভেরের সঙ্গী সিকান্দার রাজা। আট মাস পর দেশের হয়ে ওয়ানডে খেলতে নামেন তিনি। তিনি করেন ৩০ রান। বিদায় নেন সাইফউদ্দিনের বলে। একমাত্র ফিফটি আসে মাধেভেরের ব্যাটে। ৬৩ বলে ৫৬ রানে তিনি শরিফুলের শিকার। ওয়ানডে ক্রিকেটে তৃতীয় ফিফটি তার, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দ্বিতীয়। লোয়ার অর্ডারে কেউ তেমন রান করতে পারেনি।

বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে আলো ছড়ান তরুণ পেসার শরিফুল ইসলাম। ১০ ওভারে ৪৬ রানে চারটি উইকেট নেন তিনি। ক্যারিয়ার সেরা বোলিং এটি তার। সাকিব নেন দুই উইকেট। মিরাজ, সাইফউদ্দিন ও তাসকিন নেন একটি করে উইকেট।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top