বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা : প্রাথমিক আবেদন শুরু বৃহস্পতিবার

রাজটাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ৩১ মার্চ ২০২১ ১৯:৪৬; আপডেট: ২৩ এপ্রিল ২০২১ ১২:০৬

ফাইল ছবি
দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) দুপুর ১২টা থেকে শুরু হচ্ছে। আবেদন করা যাবে ১৫ এপ্রিল রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত। এবার ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বিভাগভিত্তিক। ইউনিট-এ (বিজ্ঞান) ১৯ জুন, ইউনিট-বি (মানবিক) ২৬ জুন, ইউনিট-সি (বাণিজ্য) ৩ জুলাই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
 
 
২০১৭ ও ২০১৮ সালের এসএসসি বা সমমান এবং ২০১৯ ও ২০২০ সালের এইচএসসি বা সমমান, ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি (ভোকেশনাল), ও-লেভেলসহ অন্যান্য সমমান পরীক্ষায় সমমান নির্ধারণ কমিটি কর্তৃক অনুমোদনক্রমে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরাই কেবল ভর্তি পরীক্ষার জন্য প্রাথমিক আবেদন করতে পারবে।
 
প্রাথমিক আবেদন করার পদ্ধতি গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইট (www.gstadmission.ac.bd)-এ পাওয়া যাবে। এক ঘণ্টার প্রতিটি ভর্তি পরীক্ষা দুপুর ১২ থেকে ১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।
 
বুধবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) রেজিস্ট্রার ও গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি কমিটির (২০২০-২১) সচিব প্রকৌশলী মো: ওহিদুজ্জামানের পক্ষে জবির জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দফতর থেকে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।
 
পরীক্ষায় ২০১৯ ও ২০২০ সালে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। তবে শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসির মোট জিপিএ বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম ৮.০০, বাণিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.৫ ও মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.০০ থাকতে হবে। প্রতিটি শাখার শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫ থাকতে হবে।
 
সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের বাণিজ্য শাখাসহ ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা (এইচএসসি) ও ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স বাণিজ্য শাখা হিসাবে বিবেচিত হবে। জিসিই’র ক্ষেত্রে আইজিসিএসই (ও লেভেল) পরীক্ষায় কমপক্ষে তিনটি বিষয়ে বি-গ্রেডসহ পাঁচটি বিষয়ে পাস ও আইএএল (এ-লেভেল) পরীক্ষায় কমপক্ষে দু’টি বিষয়ে বি-গ্রেডসহ তিনটি বিষয়ে পাস থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরাসরি আবেদনের মাধ্যমে সমমান ও যোগ্যতা নির্ধারণ কমিটি কর্তৃক অনুমোদনক্রমে অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন করতে হবে। সমমান নির্ধারণের লক্ষ্যে সরাসরি রেজিস্ট্রার, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগাযোগ করতে হবে।
 
প্রতিটি ইউনিটের ফলাফল গুচ্ছভুক্ত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। গুচ্ছভুক্ত প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় আলাদাভাবে ভর্তি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিজেদের শর্ত উল্লেখসহ দরখাস্ত আহ্বান করবে। শুধুমাত্র গুচ্ছভুক্ত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরাই যোগ্যতা থাকা সাপেক্ষে নির্ধারিত বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে পারবে। ইউনিটভিত্তিক মেধাক্রম অনুসারে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজ নিজ ব্যবস্থাপনায় ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে। ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ে গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি কমিটির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।
 
গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাকা), ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (কুষ্টিয়া), শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (সিলেট), খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুলনা), হাজী মুহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (দিনাজপুর), মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (টাঙ্গাইল), পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (দুমকি, পটুয়াখালী), নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোয়াখালী), কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুমিল্লা), জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ), যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যশোর), বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (রংপুর), পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পাবনা), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (গোপালগঞ্জ), বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (বরিশাল), রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রাঙ্গামাটি), রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ (সিরাজগঞ্জ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি (গাজীপুর), শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় (নেত্রকোনা), বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (জামালপুর)।
 
 
 
 
 
 
সূত্র: নয়া দিগন্ত
 



বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top