ভার্চুয়াল কোর্টের কারণে অর্ধেক মামলা জট কমেছেঃ বিচারপতি ইমান আলী

কে এ এম সাকিব | প্রকাশিত: ২৭ নভেম্বর ২০২১ ১৩:৩০; আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০২১ ১৩:৫২

আইন সেমিনারে বক্তব্য রাখছেন বিচারপতি নাইমা হায়দার।

ভার্চুয়াল কোর্টে মামলা পরিচালনার কারণে মামলা জট অর্ধেকে কমে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিচারপতি ইমান আলী। কেননা এখানে এক কোর্ট থেকে আরেকটা কোর্টে যেতে হচ্ছে না। শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিসিতে এক সেমিনারে অংশ নিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

'কারেন্ট ট্রেন্ড অব জুডিশিয়াল ডিসিশন ইন বাংলাদেশ " শীর্ষক সেমিনারটি আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ।

এসময় আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ এ বিচারপতি আরও বলেন, "ভার্চুয়াল কোর্টের বিচারব্যবস্থায় মেডিয়েশন বিষয়টি জনপ্রিয় হচ্ছে কারণ এটির অন্যতম গুণ হচ্ছে সম্পর্ক বজায় থাকে। আর এর মাধ্যমে দ্রুত ও কম খরচে মামলা নিষ্পত্তি সম্ভব। আর আমরা এটাই করার চেষ্টা করছি।"

এছাড়া কারাদন্ডের বিকল্প হিসেবে প্রবেশনের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি। প্রবেশন সম্পর্কে তিনি বলেন, এর মধ্যে রয়েছে মসজিদ পরিস্কার করা, নামাজ পড়া, বই পড়াসহ অন্যান্য নৈতিক কাজ করা । এতে করে একজন মানুষ নিজেকে সংশোধন করার সুযোগ পায়। এভাবে ১০ জন অপরাধীর মধ্যে ৭ জনই সংশোধিত হয়। ফলে অপরাধীর সংখ্যা কমে যায়।

এ সময় বিচারপতি নাইমা হায়দার বলেন, অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের মতো বাংলাদেশেও নারীরা নানভাবে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। নারী ও শিশুদের প্রতি বৈষম্যমূলক আইন, অর্থনৈতিক বৈষম্য, গভীরভাবে প্রোথিত পিতৃতন্ত্র, সামাজিক রীতিনীতি এবং ধর্মীয় চর্চা যা নারী ও শিশুদের যথাযথ অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে। যার ফলে নারীরা এখন লিঙ্গ বৈষম্যের পাশাপাশি অবিরত যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। তবে নারীদের প্রতি এসিড নিক্ষেপ, জোর পূর্বক বিবাহ দেওয়া, ইভ টিজিং ইত্যাদি সমস্যা নিরসনে বাংলাদেশের সংবিধানে বেশ কিছু নির্দেশনা আছে। যে নির্দেশিকাগুলি নারী এবং শিশুদের অধিকার সুরক্ষায় তৈরি করা হয়েছে৷

এতে সভাপতি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তারের। বিশেষ অতিথি ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও খিজির আহমেদ চৌধুরী।

এছাড়া সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া, আইন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. আহসান কবির।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. হাসিবুল আলম প্রধান। এরপরই পেপার উপস্থাপন করেন বিভাগটির অধ্যাপক আবু নাসের মো. ওয়াহেদ। এতে বিভাগটির শিক্ষক, আইনজীবী ছাড়াও অন্তত তিনশতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

 



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top