নাগারনো-কারাবাখে আজারবাইজানের হামলা শুরু

রাজ টাইমস ডেস্ক : | প্রকাশিত: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২১:৫৬; আপডেট: ২৩ মে ২০২৪ ০৮:৩৫

নাগারনো-কারাবাখে আজারবাইজানের হামলা শুরু - ছবি : আল জাজিরা

বিচ্ছিন্নতাকামী নাগারনো-কারাবাখ এলাকায় হামলা শুরু করেছে আজারবাইজান। আজ মঙ্গলবার তারা একে 'সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান' হিসেবে অভিহিত করেছে।

নাগারনো-কারাবাকের মানবাধিকার অম্বুসম্যান জানিয়েছেন, আজারবাইজানের সামরিক বাহিনীর হামলায় দুই বেসামরিক নাগরিক নিহত এবং ২৩ জন আহত হয়েছে।

আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, 'আজারবাইজানের কারাবাখ অঞ্চলে আজারবাইজানের সশস্ত্র বাহিনী স্থানীয় সন্ত্রাস-বিরোধী অভিযান পরিচালনা করছে।

এতে আরো বলা হয়, 'তারা কেবল সামরিক স্থাপনায় হামলা চালাচ্ছে। আর বেসামরিক নাগরিকদের সারিয়ে নিতে মানবিক করিডোর প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।'

এদিকে আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনইয়ান বলেছেন, তার সেনাবাহিনী এই যুদ্ধে জড়িত নয়। তিনি জানান, সীমান্তের পরিস্থিতি 'স্থিতিশীল' রয়েছে।

তিনি বলেন, 'আজারবাইজান কারাবাখের আর্মেনিয়ানদের ওপর জাতিগত শুদ্ধি অভিযান চালানোর জন্য স্থল অভিযান শুরু করেছে।' দেশটি আজারবাইজানের অভিযান বন্ধে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জাতিসঙ্ঘ, রাশিয়া এবং অন্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

ফ্রান্স, জার্মানিসহ বেশ কয়েকটি দেশ আজারবাইজানকে যুদ্ধ থামানোর অনুরোধ করেছে। জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বায়েরবুক বলেছৈন, নাগারনো-কারাবাঘে সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ কনা করার প্রতিশ্রুতি আজারবাইজান লঙ্ঘন করেছে। তারা অবিলম্বে সামরিক অভিযান বন্ধ করতে বলেছে।

ফ্রান্সও এই হামলাকে অগ্রহণযোগ্য হিসেবে অভিহিত করেছে।

এদিকে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া উভয়ের সাথে যোগাযোগ করে অবিলম্বে আলোচনার টেবিলে বসার আহ্বান জানিয়েছে রাশিয়া।

উল্লেখ্য, নাগারনো-কারাবাখ নিয়ে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার দ্বন্দ্ব দীর্ঘ দিনের। আন্তর্জাতিকভাবে এটি আজারবাইজানের হিসেবে স্বীকৃত। কিন্তু এখানকার বেশির ভাগ বাসিন্দা জাতিগতভাবে আর্মেনিয়ান ও খ্রিস্টান। তারা আর্মেনিয়ার সরকারের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রক্ষা করে চলে।

সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান ইতোপূর্বে এই এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুবার যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিল। একবার ১৯৯০-এর দশকের প্রথম দিকে, আরেকবার ২০২০ সালে।

তিন বছর আগে আজারবাইজান বাহিনী কারাবাখ অঞ্চবলের আশপাশের এলাকাগুলো দখল করে। আর ডিসেম্বর থেকে আজারবাইজান বাহিনী আর্মেনিয়া ও কারাবাখের মধ্যে সংযোগকারী ল্যাচিন করিডোরে কার্যত অবরোধ আরোপ করে।

মঙ্গলবার বাকুর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় অভিযোগ করে, আর্মেনিয়ার বাহিনী তাদের অবস্থানের ওপর 'পরিকল্পিতভাবে গোলাবর্ষণ' করছে।

সূত্র : আল জাজিরা ও বিবিসি



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস
এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top