সরকারি বিদ্যুৎ ব্যবহার করে ব্যাডমিন্টন খেলা কি বৈধ?

রাজটাইমস ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারী ২০২২ ০৪:১৩; আপডেট: ১৭ জানুয়ারী ২০২২ ০৬:৫৮

ছবি: সংগৃহীত

যারা দেশের কোটি কোটি টাকার সম্পদ লুট করছে, তারা নিজেরা যেমন জানে যে এটা পাপ, তেমনি জনগণও তাদের পাপী হিসেবেই জানে। কিন্তু কিছু সুক্ষ্ম বিষয় আছে যেগুলো অনেক বড় পাপ হলেও এগুলোকে পাপ মনে হয় না। তাই সেই পাপ থেকে তাওবা করারও সুযোগ হয় না। তেমনই একটি পাপ হলো অন্যায় ভাবে সরকারি সম্পত্তি ভোগ করা। এটি একটি দেশের সকল জনগণের হক নষ্ট করার নামান্তর। শীতকালে সরকারি বিদ্যুত চুরি করে ব্যাটমিন্টন খেলাও এরকম একটি অপরাধ।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশেও খেলাটি বেশ জনপ্রিয়। শীতকাল এলেই বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় এই খেলার আয়োজন করা হয়। যদি কেউ এই খেলাটি জুয়ার উদ্দেশ্যে না থাকে তবে এই খেলাতে ইসলামী কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। শরীরচর্চার উদ্দেশ্যে খেলাধুলা (যা মানুষকে আল্লাহর ইবাদত ভুলিয়ে দেয় না) ইসলামে বৈধ। (আল ফিকহুল ইসলামী ওয়া আদিল্লাতুহু : ২৬৬২, ইমদাদুল আহকাম : ৪/৩৬৯)।

বেশির ভাগ মানুষ ব্যাডমিন্টন খেলেন রাতের বেলায়। ফলে বিদ্যুতের প্রয়োজন হয় এবং এরর জোগান দেওয়া হয় আশপাশের কোনো বাসা-বাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিংবা সরাসরি সরকারি লাইন থেকে। কারো ব্যক্তিগত বিদ্যুৎ ব্যবহার করে ব্যাডমিন্টন খেলতে চাইলে অবশ্যই তার অনুমতি নিতে হবে। তা না হলে সেই বিদ্যুৎ ব্যবহার করা জায়েজ হবে না।

কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিংবা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে চাইলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে। (ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ১১/১৪০, আদ্দুররুল মুখতার : ৬/২০০)

তবে সরাসরি সরকারি লাইন থেকে বিদ্যুৎ নিয়ে ব্যাডমিন্টন খেলা আইনত দণ্ডনীয়। সরকারি আইন অনুযায়ী এভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের ক্ষেত্রে তিন বছরের কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। (ডিপিডিসি)

তা ছাড়া এটি বিদ্যুৎ চুরির শামিল। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, আবু হুরায়রা (রা.) সূত্রে নবী (সা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, চোরের ওপর আল্লাহর অভিশাপ হোক, যখন সে একটি শিরস্ত্রান চুরি করে এবং এ জন্য তার হাত কাটা হয় এবং সে একটি রশি চুরি করে এ জন্য তার হাত কাটা হয়।

আমাশ (রহ.) বলেন, তারা মনে করত যে শিরস্ত্রান লোহার হতে হবে আর রশির ব্যাপারে তারা ধারণা করত তা কয়েক দিরহামের সমমূল্যের হবে। (বুখারি, হাদিস : ৬৭৮৩)।

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে যে রাসুল (সা.) বলেন, মুমিন চুরি করার সময় ঈমানদার থাকে না। (মুসলিম, হাদিস : ১০৬)।

উল্লেখ্য, মানুষ কারো ব্যক্তিগত সম্পদ চুরি করলে, সে একজনের হক নষ্ট করল। কিন্তু কেউ যদি জাতীয় সম্পদ চুরি করে, সে গোটা জাতির হক নষ্ট করল, যা অত্যন্ত ভয়াবহ অপরাধ। তাই সরাসরি সরকারি লাইন থেকে বিদ্যুৎ নিয়ে ব্যাডমিন্টন খেলা শরিয়ত ও প্রচলিত আইনে দন্ডনীয় অপরাধ।



বিষয়:


বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top